নক্টারনাল এনুরেসিস বা শিশুদের বিছানা ভেজানোঃকি ও কেন হয়

নক্টারনাল এনুরেসিস বা শিশুদের বিছানা ভেজানোঃকি ও কেন হয়

ডায়াবেটিক ফুট ও অর্থোপেডিক সমস্যার জন্য
পরামর্শ নিতে কল করুন 01674659548

প্রিয়জনের উপকার করুন, শেয়ার করুন-

নক্টারনাল এনুরেসিস এমন একটি সমস্যা যা ছোট শিশুদের প্রভাবিত করে। তারা ঘুমের মধ্যে প্রস্রাব করে ফেলে এবং বাবা বা মা হিসাবেএটি নিয়ে খুব বেশি সতর্ক হওয়ার দরকার নেই। এটি একটি সাধারণ ঘটনা যা সঠিক যত্ন এবং ভালবাসা দিয়ে পরিচালনা করা যায়।

নক্টারনাল এনুরেসিস বা বেডওয়েটিং কি ?

নক্টারনাল এনুরেসিস বা বেডওয়েটিং হল ঘুমের মধ্যে বিছানায় অনৈচ্ছিক প্রস্রাব তখন হয় যে বয়সের পরে সাধারণত মূত্রাশয়ে নিয়ন্ত্রণ চলে আসে। এটি একটি বিকাশগত বিলম্ব এবং এটি কোন সংবেদনশীল সমস্যা বা কোন শারীরিক অসুস্থতা নয়। ৫থেকে ১০বেডবয়েটিংয়ের ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট চিকিত্সাসংক্রান্ত কারণে হয়। তবে এটি কোন পারিবারিক ইতিহাসের কারণেও হতে পারে

বিছানা ভেজানো এমন অনেক বাচ্চা আছে যাদের বাবামাও একই বয়সে এটি করতেন। এই অবস্থাটি অনেক বাবামা বা ডাক্তার নির্ধারণের জন্য বিবেচনা করেন না যতক্ষণ না শিশুটি ৫ বছর বা তার চেয়ে বেশি বয়সী হয়। এনুরেসিস একটি সাধারণ সমস্যা যা শিশু এবং তাদের পরিবারের জন্য সমস্যার হতে পারে।

একটি শিশুর নক্টারনাল এনুরেসিস তার অন্তর্নিহিত কোন রোগ বা অসুস্থতার লক্ষণ হতে পারে।

নক্টারনাল এনুরেসিসের প্রধান লক্ষণগুলি হল:

  • বারবার বিছানা ভেজানো
  • পোশাকে প্রস্রাব করা
  • প্রায় তিন মাস ধরে কমপক্ষে সপ্তাহে দুই বার ঘুমের মধ্যে প্রস্রাব করা।

শিশুদের মধ্যে এনুরেসিস কতটা সাধারণ?

শিশুদের মধ্যে এনুরেসিস একটি সাধারণ সমস্যা। এটি ৫ বছর বা তার কম বয়সী প্রায় ৭ছেলে এবং ৩মেয়েদের মধ্যে হয়। এই সংখ্যাটি ১০ বছর বয়সী ছেলেদের মধ্যে ৩এবং মেয়েদের ২%-এ নেমে যায়। শিশুরা বেশিরভাগই তাদের কৈশোরে এই সমস্যা থেকে মুক্ত হয়ে যায়১৮ বছর বয়সে প্রায় ১ছেলেমেয়েদের এই ব্যাধিগ্রস্থ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

বেডওয়েটিংয়ের প্রকারগুলি

নক্টারনাল এনুরেসিস বা বিছানায় প্রস্রাব করার দুইটি প্রকার রয়েছে –

  • প্রাইমারি নক্টারনাল এনুরেসিস (পিএনই)
  • সেকেন্ডারি নক্টারনাল এনুরেসিস (এসএনই)

নক্টারনাল এনুরেসিসের কারণগুলি নিম্নরূপ:

  • শিশুর শরীরে এখনও মূত্রাশয়ের সমস্যা রয়েছে
  • সারা রাত ধরে শিশু প্রস্রাব নিয়ন্ত্রণ করতে অক্ষম হয়
  • শিশুর মূত্রাশয় পূর্ণ হয়ে উঠলেও সে জেগে ওঠে না
  • সন্ধ্যা ও রাতে শিশু উল্লেখযোগ্য পরিমাণে প্রস্রাব করে।
  • শিশুর প্রস্রাব করার খারাপ অভ্যাস থাকতে পারে। শিশুরা দীর্ঘ সময় ধরে প্রস্রাবের তাড়না অনুভব করে না এবং প্রস্রাব চেপে রাখে। অভিভাবকরা মুখের টান পড়াচোখমুখ কোঁচকানোউবু হয়ে থাকা বা পেট টিপে রাখা ইত্যাদি বিভিন্ন অভিব্যক্তি সম্পর্কে সচেতন হবেন যা শিশুরা প্রস্রাব আটকে রাখার জন্য ব্যবহার করে।
  • ক্যাফিন এবং মূত্রবর্ধক জিনিসের ব্যবহারের কারণে প্রস্রাবের উত্পাদন বৃদ্ধি পায়
  • দীর্ঘস্থায়ী কোষ্ঠকাঠিন্য এবং প্যান্টে মলত্যাগ করা।
  • মূত্রনালীর সংক্রমণ
  • ডায়াবেটিস
  • শারীরবৃত্তীয় অস্বাভাবিকতা
  • একটি স্নায়বিক সমস্যা
  • সামাজিক বা মানসিক চাপ
  • জিনতত্ত্ব

সম্পাদনাঃ

ডাঃ মোহাম্মদ শহীদুল ইসলাম (সুমন)
এমবিবিএস(সিইউ),এমসিপিএস(শিশু স্বাস্থ্য), এফসিপিএস(শিশু স্বাস্থ্য)
নবজাতক ও শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ
সময়ঃ সন্ধ্যা ৭ টা – রাত ১০টা
প্রতিদিন,শুক্রবার বন্ধ
প্রাথমিক পরামর্শঃ ০১৮৯১-৬২২৬৪৫ (ফ্রি)
সিরিয়ালঃ ০৩১-২৫৫৫০৭১-৫,০১৯৭৬-০২২১১১
# পার্কভিউ হাসপাতাল

 


প্রিয়জনের উপকার করুন, শেয়ার করুন-

Leave a reply

Your email address will not be published.

You may use these HTML tags and attributes:

<a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>