গ্যাংগ্রিনের সাথে ডায়াবেটিসের সর্ম্পক কি ?

গ্যাংগ্রিন
আপনার চেম্বার/হাসপাতাল/মেডিকেল প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন

(চট্টগ্রামের প্রতিটি মানুষের কাছে পৌছে যাক আপনার সেবার বার্তা)

প্রিয়জনের উপকার করুন, শেয়ার করুন-

What does diabetes have to do with gangrene?

গ্যাংগ্রিন কি ?

গ্যাংগ্রিন  এমন একটি অবস্থা যাতে শরীরে স্বাভাবিক কোষ বা টিস্যু নষ্ট হয়ে যায় বা মারা যায়।এটি তখনই ঘটে যখন শরীরের ঐ কোষে বা কোষ গুলোতে রক্ত চলাচল ব্যাহত হয় বা বন্ধ হয়ে যায়।আর এই গ্যাংগ্রীন কিভাবে শুরু হয়?

আপনি হাতে বা পায়ে বা যে কোন জায়গায় আঘাত পেলেন বা কেটে গেলেন, সেখানে জীবাণুর সংক্রমণ হলো।ধীরে ধীরে সে জায়গায় পুজ জমলো,পেকে গেলো এবং একসময় ঘা হয়ে গেলো।সাধারণত পায়ের আঙ্গুল,হাতের আঙ্গিল এবং ঐ সব শরীরের জায়গা যে গুলোতে  বাতাস লাগে কম।

গ্যাংগ্রিন অনেকসময় অযাচিত ভাবে দেখা দেয়,তখন চামড়া বর্ণহীন হয়ে যায়,অনুভূতি কাজ  করে না। এ সিম্পটম গুলো অবহেলা করা উচিত নয়।এরকম লক্ষণ দেখা দিলে বা গ্যাংগ্রিন হয়েই গেলে জরুরি ভাবে ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হবে।ক্ষত স্থানের মৃত টিস্যু অপসারণ করতে হবে এবং ব্যাকটেরিয়া যাতে আর ছড়াতে না পারে সে ব্যবস্থা করতে হবে।দীর্ঘমেয়াদী গ্যাংগ্রিনে প্রাণের ঝুকি তৈরী হতে পারে।

গ্যাংগ্রিনের সাথে ডায়াবেটিসেরর সর্ম্পক:

আপনার যদি ডায়াবেটিস হয় তবে গ্যাংগ্রিন হওয়ার সম্ভ্যাব্য ঝুকিতে আছেন।রক্তে অতিরিক্ত গ্লুকোজ শরীরের স্নায়ু গুলোকে দূর্বল করে ফেলে।যাতে রোগীর অনুভূতি ক্ষমতা কমে যায় বা হারিয়ে ফেলে।তখন যা ঘটে রোগী কোথাও আঘাত পেলে,সাথে সাথে জানতে পারে না।অল্প ক্ষত তখন ঘা হয়ে যায়।অতিরিক্ত গ্লুকোজ শরীরের রক্তনালীকে ক্ষতিগ্রস্ত করে।রক্ত চলাচল কমিয়ে দেয়।পায়ে যদি নিয়মিত ও পর্যাপ্ত পরিমাণে রক্ত চলাচল না করে তখন পায়ের রোগ প্রতিরোধী কোষ গুলো দূর্বল হয়ে যায় এবং বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ ছড়ায়।এবং সাধারণ ক্ষত তখন সহজে শুকায় না।ডায়াবেটিস রোগীর ক্ষেত্রে প্রায় সময় যা হয়,রোগীর “ডায়াবেটিক ফুট” ডিভেলপ করে কিন্তু রোগীর অবহেলার কারণে যা গ্যাংগ্রিনে রূপান্তরিত হয়।সঠিক সময়ে চিকিৎসা না নিলে অনেক সময় পা কেটে ফেলতে হয়।

গ্যাংগ্রিন হওয়ার  আরো কিছু কারণ আছে:

# পেরিফেরাল আর্টেরিয়াল ডিজিস

# এথেরোসক্লেরোসিস

# রেয়নোড ফেনোমরনোন

# সাম্প্রতিক কোন সার্জারী করালে বা কোন বড়ধরনের আগাত পেলে

# যাদের ইমিউনিটি একদম কম

# ডায়াবেটিস

# কেমোথেরাপি

# অপুষ্ঠি

# কিডনী ফেইলর

# এইডস

# ৬০ বছরের বেশী বয়সী মানুষের

কৃতজ্ঞতাঃ

ডাঃ এম এ মুকিত
ডায়াবেটিক ফুট ও বেড সোর স্পেশালিস্ট
কনসালটেন্ট অর্থোপেডিক
পিপলস হাসপাতাল,
৯৪, কে বি ফজলুল কাদের রোড,চকবাজার মেডিকেল এর সামনে,চট্টগ্রাম
প্রাথমিক পরামর্শ পেতে কল ক্রুনঃ ০১৬৭৪- ৬৫৯ ৫৪৮
সিরিয়ালঃ ০১৯৬১-১৪০০৯৩


প্রিয়জনের উপকার করুন, শেয়ার করুন-

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Don`t copy text!
Scroll to Top