থাইরয়েড ফাংশন টেস্ট কি ও কখন এ পরীক্ষা করতে হয় ?

থাইরয়েড ফাংশন টেস্ট কি ও কখন এ পরীক্ষা করতে হয় ?
প্রিয়জনের উপকার করুন, শেয়ার করুন-

থাইরয়েড ফাংশন টেস্ট কিছু টেস্ট গুচ্ছ যা দিয়ে থাইরয়েড গ্ল্যান্ড এর কার্যকারিতা নির্ণয় করা হয়।টেস্ট গুলো হলো TSH, T3, T4 ।

থাইরয়েড একটু ছোট গ্ল্যান্ড যা মানুষের গলার সামনের দিকে নিচের পার্টে থাকে।থাইরয়েড গ্ল্যান্ড মানব শরীরের অনেক গুলো গুরুত্বপূর্ণ কাজের সাথে জড়িত।

থাইরয়েড প্রধানত ২ ধরনের হরমোন উৎপন্ন করে—
# Triiodotyronine
# Thyroxine

যদি আপনার শরীরের থাইরয়েড গ্ল্যান্ড পর্যাপ্ত হরমোন উৎপন্ন না করে তবে আপনার শরীরে কিছু লক্ষণ দেখা দিবে যেমন—–
# ওজন বেড়ে যাওয়া
# শরীর দূবল লাগা
# ডিপ্রেশন

এ অবস্থাকে “Hypothyroidism” বলে।

 

যদি আপনার শরীরের থাইরয়েড গ্ল্যান্ড শরীরে অতিরিক্ত হরমোন উৎপন্ন করে,তাহলে নিচের লক্ষণ গুলো দেখা দিবে—–
# অকারণে টেনশন হবে
# শরীরে কাপুনি আসা
# ঘুমের সমস্যা
# মুড সুইং

এ অবস্থাকে “Hyperthyrodism” বলে।

কখন থাইরয়েড হরমোন পরীক্ষা করাতে হবে ?

 

 

# হাইপোথাইরয়েডের কিছু লক্ষণ নারীরা প্রায়ই খেয়াল করেন না। যেমন: ব্যাখ্যা করা যায় না এমন ক্লান্তি বা অবসাদ, অল্পতেই পরিশ্রান্ত বোধ করার অনুভূতি হতে পারে।

# শরীরের পেশি বা সন্ধিতে কোনো কারণ ছাড়াই ব্যথা, ম্যাজমেজে ভাব অনুভব হতে পারে। কখনো সকালে ঘুম থেকে জেগে মনে হতে পারে মুখটা ফোলা, পায়ে মাঝে মাঝে পানিও আসতে পারে।

# ওজন বাড়তে থাকা ও চেষ্টা সত্ত্বেও ওজন নিয়ন্ত্রণ করতে না পারা হাইপোথাইরয়েডের অন্যতম একটি লক্ষণ।

# রুটিন পরীক্ষায় নারীদের রক্তে কোলেস্টেরলের পরিমাণ মাত্রাতিরিক্ত পাওয়া গেলে থাইরয়েড হরমোন পরীক্ষা করার কথা নির্দেশিত আছে।
টাইপ ২ ডায়াবেটিস এবং রক্তশূন্যতায় আক্রান্ত নারীদেরও রুটিন থাইরয়েড পরীক্ষা করা উচিত।

# অনিয়মিত মাসিক, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ, বন্ধ্যাত্ব, গর্ভপাত হয়ে যাওয়া।

# স্রেফ কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে থাইরয়েড ঘাটতির একটি বিশেষ উপসর্গ।

# শুষ্ক ত্বক, অতিরিক্ত চুল পড়া ও ত্বকের নানা সমস্যায় থাইরয়েড হরমোন পরীক্ষা করার প্রয়োজন হতে পারে।

# মধ্যবয়স্ক বা বয়স্ক নারীদের ভুলে যাওয়ার প্রবণতা, মনোযোগ না থাকা ও ডিমেনশিয়াকে অনেক সময়ই উপেক্ষা করা হয়। কিন্তু
গবেষণা বলছে, শুধু এই উপসর্গ নিয়েই একটা বড় অংশের হাইপোথাইরয়েড রোগীর রোগ শনাক্ত হয়।

# সবচেয়ে বেশি অবহেলিত উপসর্গ হলো ব্যাখ্যাতীত বিষণ্নতা, খিটখিটে মেজাজ, অতিরিক্ত আবেগপ্রবণতা।

থাইরয়েড টেস্ট কি খালি পেটে করতে হয় ?

 

 

থাইরয়েড টেস্ট সাধারণত খালি পেট করতে হয় না।তবে অনেক সময় এটি ডাক্তারে ইচ্ছার উপর নির্ভর সেক্ষেত্রে ডাক্তার থেকে জিজ্ঞাসা করা উচিত।

 

থাইরয়েড ফাংশান টেস্টে রোগীর প্রস্তুতিঃ

 

# # রোগী যদি হরমোনের জন্য কোন ঔষধ নেয়,তবে তা ডাক্তারকে জানাতে হবে।

# টেস্ট করাতে হবে সকাল বেলা কারণ বেলা বাড়তে বাড়তে হরমোন লেবেল বাড়তে থাকে।রাতের বেলা কমতে থাকে।

# রোগী মাত্রাতিরিক্ত সময় খালি পেটে থাকলে হরমোন বাড়তি আসতে পারে

# মহিলাদের পিরিয়ড চলাকালিন এ টেস্ট করা যাবে না।কারণ এ সময় হরমোন লেবেল খুব দ্রুত পরিবর্তন হয়।

# রোগী যত বেশী মুভমেন্ট করবে,হরমোন সিক্রেশান তত বেড়ে যাবে।

# রোগী যদি কোন ইনফেকশনে ভুগে তাহলে হরমোন বাড়তি আসতে পারে।

# কোন সাপ্লিমেন্ট খেলে তা ডাক্তারকে জানাতে হবে।

# যদি রিপোর্ট সন্দেহ হয় তাহলে একই ল্যাবে একই সময়ে পরদিন করান অথবা ভিন্ন ল্যাবে একই সময়ে করান।

# দিনের যে কোন সময়ে হরমোন টেস্ট করা যাবে না।

# প্রেগ্ন্যান্সিতে হরমোন রেজাল্ট ফলস পজিটিব বা ফলস নেগেটিভ আসতে পারে।

 

থাইরয়েড টেস্ট খরচ কত ?

সরকারী মেডিকেলে অনেক কম খরচে করা যায়।চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের নিউক্লিয়ার মেডিসিন বিভাগে স্বল্প খরচে করা যায়।বেসরকারী ল্যাব গুলোতে ৯০০-১২০০ টাকা খরচ হতে পারে।


প্রিয়জনের উপকার করুন, শেয়ার করুন-

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top