A Leading Doctor Chamber information Site In Chittagong

kk
4
22
a5
a3
2
5
dr3 (1)

একনি বা ব্রণ এর কারণ কি,কাদের হয় এবং চিকিৎসা ব্যবস্থা কি

একনি বা ব্রণ এর কারণ কি,কাদের হয় এবং চিকিৎসা ব্যবস্থা কি

একনে বা ব্রণ কি ??

ত্বকের যেসব সমস্যা রয়েছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য একটি সমস্যা হলো ‘একনি বা ব্রণ ’।আমাদের ত্বকে অতিরিক্ত তেল অথবা নিম্নমানের স্কিন প্রোডাক্ট ব্যবহারের কারণে একনি বা ব্রণ জনিত সমস্যা দেখা দেয়।
মুখে একনি সমস্যা দেখা দিলে তা আপনার সৌন্দর্যকে অনেকটা কমিয়ে দেয়। সেইসঙ্গে আপনার আত্মবিশ্বাসও অনেকটা কমে যায় এই ‘একনির’ জন্য। চলুন জেনে নিন একনি সমস্যা দূর করতে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ এবং একনি এর আধুনিক চিকিৎসা।

 

 

বিভিন্ন ধরনের একনে বা ব্রণ————————-

একনের বিভিন্ন রূপ আছে যেমন –
✅ হোয়াইটহেড(Whiteheads)
✅ ব্ল্যাকহেড (Blackheads)
✅ পাশ্চুল
✅প্যাপুল
✅ সিস্টৎ ও নডিউল
এগুলি দেহের বিভিন্ন অংশে হতে পারে যেমন মুখ, গলা, কাঁধ এবং পিঠ। এই ব্রণগুলি ত্বকের মসৃণতা নষ্ট করে এবং প্রদাহ বা ক্ষতচিহ্নের সৃষ্টি করে।

 

 

একনে বা ব্রণ হবার কারন কি ?

✅ অত্যধিক ঘামের কারণে একনে হয়ে থাকে। বেশি ঘাম হলেই জীবাণু ও ময়লূ আটকে ত্বকের ছিদ্র বন্ধ হয়ে যায় । ফলে একজনের জন্ম হয়।
✅ একনে হবার অন্যতম প্রধান কারণ হচ্ছে অপরিষ্কার ত্বক। দূষণ, ময়লা, মেকআপ এবং অন্যান্য টক্সিন থেকে নিয়মিত ত্বক পরিষ্কার না করলে সহজেই ত্বকের ছিদ্র আটকে যায় এবং একনে হয়ে থাকে।
✅ কোন কিছু নিয়ে খুব বেশি দুশ্চিন্তা বা স্ট্রেস হয়ে থাকি, তখন আমাদের স্ট্রেস হরমোন ত্বকের সেবাসিয়াস গ্রন্থির রিসেপ্টরগুলোকে আবদ্ধ করে যার ফলে ত্বকে প্রচুর তৈল উৎপাদন ঘটে এবং এর ফলে একনে দেখা যায়।
✅ হরমোন ক্ষরণের তারতম্য ঘটলে একনে হয় যা খুব স্বাভাবিক একটি প্রক্রিয়া। হরমোনের কমবেশি ক্ষরণ একনের পাশাপাশি বয়সেরও ছাপ ফেলে ত্বকে।
✅ দুধ বা দুধ জাতীয় কোন খাবার খেলে অনেকের একনে দেখা যায়। অতিরিক্ত জাঙ্ক ফুড কোল্ড ড্রিংকস, ভাজাপোড়া খাওয়ার অর্থ একনে যত খাবেন ততই ব্রণের সমস্যা বেশি হবে।
তাই একনে থেকে নিজের ত্বককে বাঁচানোর জন্য যেসব কারণে একনে হয়ে থাকে সে কারণগুলো থেকে দূরে থাকুন এবং সুস্থ থাকুন এবং প্রয়োজনে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

 

 

একনে নিয়ে প্রচলিত কিছু ভুল ধারণা—————————-

একনে নিয়ে আমাদের মধ্যে কিছু ভুল ধারণা রয়েছে, যা উপকারের থেকে অনেক বেশি ক্ষতিকর ।
✅ টুথপেষ্ট ব্যবহারে একনে গায়েব
আমাদের বড় একটা অংশ মনে করে টুথপেস্ট একনে কমানোর মহা ঔষধ কিন্তু টুথপেষ্টের ফ্লোরাইড উপাদান একনে আরো সিভিয়ার অবস্থায় নিয়ে যায়। যা অত্যন্ত ক্ষতিকর।
✅ পুজ বের করে ফেললে দাগ পড়ে না
অনেকেই মনে করে সুই বা ধারালো কিছু দিয়ে পুঁজ বের করে ফেললে ক্ষতিকর পদার্থ বেরিয়ে যায় এবং ব্রনের দাগ পড়ে না তা সম্পূর্ণ ভুল ধারণা। কেননা পুঁজ বের করে ফেলার ফলে জায়গাটিতে গর্ত হয়ে যায়।
✅এমনি এমনি হয়েছে, এমনি এমনি চলে যাবে
সবচেয়ে বেশি মানুষ এই ধারণাটি মনের মধ্যে রেখেছেন। যে সম্পূর্ণ ভুল কেননা বিভিন্ন কারণে একনে হয়ে থাকে এবং তার ট্রিটমেন্ট না করলে তা বেড়ে চলে। যার ফলে দেখাতে অন্যান্য নানা সমস্যা।
একনে হলে ধরন বুঝে অবশ্যই ট্রিটমেন্ট করতে হবে।

 

 

ত্বকের ‘একনি’ সমস্যা দূর করতে যা খাবেন———————-

ব্রণ ত্বকের সমস্যা হলেও অনেক খাবারের মাধ্যমে তা নিয়ন্ত্রণে আনা যায়।
কমলাতে থাকা ভিটামিন সি, অ্যান্টিঅক্সিডেন্টব্রণ দূর করার ভালো উৎস। এটা কোষ ও ত্বকের স্বাস্থ্য ভালো ও সুস্থ রাখে।
তিসি ও আখরোট: রয়েছে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড যা প্রদাহ কমায় এবং বাড়তি সিবাম ও ব্যাক্টেরিয়ার উৎপাদন কমায়। যা ব্রণ প্রতিরোধে সহায়তা করে।
মাশরুম জিংকের ভালো উৎস। জিংক ব্যাক্টেরিয়ার কারণে হওয়া ব্রণ কমাতে সাহায্য করে।
পেঁপে এর উজ্জ্বল কমলা রংয়ে আছে অত্যাবশ্যকীয় এনজাইম- প্যাপাইন ও কায়ম্যাপোপেইন, যা ব্রণ কমাতে চমৎকার কাজ করে।
মাছ খেলে ব্রণ হওয়ার প্রবণতা হ্রাস করে। কারণ মাছে আছে প্রচুর পরিমাণ ওমেগা-৩ ও ওমেগা-৬ ফ্যাটি এসিড।
মৌরিতে আছে আয়রন, কপার, পটাসিয়াম, জিংকের মতো উপাদান যা ত্বকের ব্রণ সমস্যার উপশম হয়।

 

 

একনে বা ব্রণ বা পিম্পল থেকে রক্ষা পাবার কিছু টিপস—————————

✓ প্রচুর পরিমাণে পানি পান।
✓ ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন।
✓ যেসব খাবার খেলে ব্রণ, অ্যালার্জি বা একজিমা বেড়ে যায়, সেসব খাবার এড়িয়ে চলুন।
✓ প্রক্রিয়াজাত খাবার ও চিনিযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলুন।
✓ শাকসবজি ও ফল বেশি করে খেতে হবে।
✓ জাঙ্ক ফুড বা তেল জাতীয় ও দুধ জাতীয় খাবার পরিহার।
✓ প্রতিদিনের খাবারে ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার অবশ্যই রাখবেন।
✓ সবসময় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে।
✓ নখ, চুল, মুখ ইত্যাদির প্রতি বেশ যত্নবান হতে হবে।
✓ একনে আক্রান্ত ব্যক্তির ব্যবহৃত তোয়ালে, নেইল কাটার, মেকআপ প্রোডাক্ট ইত্যাদি ব্যবহার করা যাবে না।
✓ দুশ্চিন্তা বা স্ট্রেস থেকে দূরে থাকুন।
✓ সমস্যা বেশি হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।
✓ বিশেষজ্ঞ ও চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোনো ওষুধ খাবেন না ও ত্বকে ব্যবহার কবেন না।

 

 

ব্রণের সমস্যায় পিআরপি থেরাপি——————

ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে পিআরপি থেরাপি ব্যবহার করা যায়।

যেমন ব্রণের দ্বারা সৃষ্ট ক্ষত,

লোমকূপ বড় হয়ে যাওয়া,

চোখের নিচের কালো দাগ,

অল্প বয়সে ত্বক বুড়িয়ে যাওয়া,

ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ানো ইত্যাদি।

এই পিআরপি থেরাপি নির্দিষ্ট স্থানে ইনসুলিন সিরিঞ্জের মাধ্যমে প্রয়োগ করা হয়। থেরাপি নেওয়ার ১০ মিনিটের মধ্যে রোগী বাসায় যেতে পারেন ও স্বাভাবিক সব ধরনের কাজকর্ম করতে পারেন।

সাধারণত প্রতি মাসে ১ বার করে, ৮ থেকে ১২ মাস ধরে থেরাপি দেওয়া হয় ও থেরাপি শুরুর ৩ মাস পর থেকেই রোগীর অবস্থার পরিবর্তন ও উন্নতি বুঝতে পারেন। রোগের অবস্থান, রোগীর বয়স, শারীরিক অবস্থা সবকিছুর ওপর ভিত্তি করে ফলাফল নির্ভর করে।

কৃতজ্ঞতা————————————————

 

এমবিবিএস, বিসিএস, ডিডিভি (বিএসএমএমইউ
(এডভান্স ট্রেনিং ইন সেক্সুয়াল মেডিসিন)
চর্ম ও যৌন রোগ বিশেষজ্ঞ
লেজার ও ডার্মাটো সার্জারী
চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল
এক্স আমেরিকান হাসপাতাল (আগ্রাবাদ)
মেম্বার অব আমেরিকান একাডেমি অব এস্থেটিক মেডিসিন।
চেম্বার
কেয়ার ল্যাব
চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের বিপরীত পাশে সোনালী ব্যাংকের গলি, চট্টগ্রাম
রোগী দেখার সময়ঃ শনি, রবি, বুধ ও বৃহস্পতিবার
সময়ঃ সন্ধ্যা ৭ টা- রাত ৯ টা পর্যন্ত।
সিরিয়ালঃ ০১৭৪৯-১২০৭০৩, ০১৭৮৩-৮৭২৫৮১

1 thought on “একনি বা ব্রণ এর কারণ কি,কাদের হয় এবং চিকিৎসা ব্যবস্থা কি”

  1. খুবই সুন্দর করে বিষয় গুলো বর্ণনা করেছেন এই পোস্ট এর মাধ্যমে। এই পোস্ট পড়ার পর অনেক বিসয় জানতে পেরেছি খুবি উপকারি পোস্ট ।সহজ ও সাবলীল ভাষায় বর্ণনা করেছান। আমার অনেক ভাল লেগেছে। https://bdarchives.com/

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *